অন্য ভাষার মত মাতৃভাষাও শিখতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

0
82
অন্য ভাষার মত মাতৃভাষাও শিখতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
অন্য ভাষার মত মাতৃভাষাও শিখতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিশ্বের সব ধরনের ভাষা সংরক্ষণের ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘ভাষার অধিকার রক্ষা করা, ভাষাকে সম্মান দেওয়া এবং পৃথিবীর হারিয়ে যাওয়া ভাষাগুলো সংরক্ষণের জন্যই সরকার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট গড়ে তুলেছে।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, এখানে ভাষা জাদুঘর করা হয়েছে। সারা বিশ্বের হারিয়ে যাওয়া ভাষা এবং চলমান ভাষার নমুনা এখানে রাখা হয়েছে।’

আজ রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট আয়োজিত চার দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির ভাষণে এ কথা বলেন।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট সম্পর্কে শেখ হাসিনা বলেন, ‘ভাষা নিয়ে পড়াশোনা, ভাষার ইতিহাস সংগ্রহ করা এবং এ ব্যাপারে যাঁরা শিক্ষা ও গবেষণা করবেন, তাঁরা যেন সুযোগ পান সে ব্যবস্থা এখানে রাখা হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একুশে ফেব্রুয়ারি আমাদের, আমরা রক্ত দিয়ে ভাষার কথা লিখে গিয়েছি। কাজেই অন্য ভাষাগুলো যাতে হারিয়ে না যায়, এর অস্তিত্ব যে আছে, সেটা যেন প্রকাশ পায়, সে জন্য আমরা এই ব্যবস্থা নিয়েছি। কাজেই এটা আমি মনে করি, বাংলাদেশের জন্য একটা সম্মানজনক প্রতিষ্ঠান। আমাদের ইতিহাস ও ঐতিহ্য রক্ষা করে, আন্তর্জাতিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে আমাদের অন্য ভাষা যেমন শিখতে হবে তেমনি মাতৃভাষাও শিখতে হবে। সেই সঙ্গে আমাদের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর ভাষাটাও সংরক্ষণ করতে হবে।’ এই প্রতিষ্ঠানকে দ্বিতীয় ক্যাটাগরিতে উন্নীত করায় তিনি ইউনেসকোকে ধন্যবাদও জানান।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর ভাষা সংরক্ষণ করা গেলে তারা সেই ভাষায় শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে। সে জন্য আমরা আমরা তাদের বিনা মূল্যে দিচ্ছি। যাতে তারাও নিজের ভাষা শিখতে এবং কথা বলতে পারে, সেদিকে আমরা বিশেষ দৃষ্টি দিয়েছি।’
ভাষা নিয়ে গবেষণার স্বীকৃতিস্বরূপ জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সরকার এ বছর থেকে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা জাতীয় পদক-২০২১’ ও ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা আন্তর্জাতিক পদক-২০২১’ প্রবর্তন করেছে। প্রতি দুই বছর অন্তর এই সম্মাননা প্রদান করা হবে।

ভাষাশহীদদের স্মরণে সবাই দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন। এরপরই একুশের গান ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ সমবেত কণ্ঠে পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here