জবি প্রদত্ত রবি সিমে সীমাবদ্ধতা, শিক্ষার্থীদের সিম সংগ্রহে অনাগ্রহ

0
100
জবি প্রদত্ত রবি সিমে সীমাবদ্ধতা, শিক্ষার্থীর সিম সংগ্রহে অনাগ্রহ
জবি প্রদত্ত রবি সিমে সীমাবদ্ধতা, শিক্ষার্থীদের সিম সংগ্রহে অনাগ্রহ

জবি প্রতিনিধি: রবি’র সাথে জবি শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সাশ্রয়ী মূল্যে ডাটা সরবরাহে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয় গত ৪ নভেম্বর ২০২০ (বুধবার), অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাশ্রয়ী মূল্যে ডাটা বান্ডেল প্রদান করার লক্ষ্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় এবং ডিজিটাল সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান রবি’র মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠান উপাচার্যের কনফারেন্স কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়।

যেখানে বলা হয়, মহামারি করোনায় অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীরা রেজিস্ট্রেশন ও ব্যবহারের শর্তাবলী সাপেক্ষে ক্যাম্পাস ছাড়াও ৭৭ টি এড্রেস এর যেকোনো একটি থেকে বিনামূল্যে সিম সংগ্রহ করবে, রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করার পর ‘রবি’ রেজিস্ট্রেশনকৃত মোবাইল নম্বরে ডাটা প্যাকেজে অন্তর্ভূক্ত হওয়ার কনফার্মেশন ম্যাসেজ প্রদান করবে। অতঃপর শিক্ষার্থীরা ১৯৯ টাকা রিচার্জ করবে এবং ইউএসএসডি কোড (*১২৩*৭৭৩৩#) ডায়াল করে বিশ্ববিদ্যালয় ও ‘রবি’ প্রদত্ত সুবিধাটি উপভোগ করা যাবে। এরপর থেকে ১৯৯ টাকার ৩০ জিবি ডাটা প্যাকেজের মধ্যে শিক্ষার্থীরা ৯৯ টাকা প্রদান করবে এবং বাকী ১০০ টাকা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ রবি’কে ভর্তুকি হিসেবে প্রদান করবে বলে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ও রবি’র মধ্যে এক সমঝোতা স্মারক চুক্তি হয়। কিন্তু রবির সাশ্রয়ী মূল্যে ডাটা প্যাক ও বিনামূল্যে সিম নিয়ে নানা বিড়ম্বনায় পড়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

বিজ্ঞপ্তি থেকে জানা যায়, এই ডাটা প্যাকেজের মাধ্যমে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েব পোর্টাল, ই-লাইব্রেরি পোর্টাল, বিডিরেন জুম, গুগল ড্রাইভ, হোয়াটসঅ্যাপ, জি-মেইল, হট-মেইল, ইয়াহু মেইল এ সমস্ত সেবাগুলো গ্রহণ করা যাবে। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইন ক্লাসের জুম লিংক গুলো গুগল ক্লাসরুম এপসের মাধ্যমে অথবা কেউ কেউ ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমেও দেয়া হয়ে থাকে। এমনকি ক্লাস রেকর্ড ইউটিউব ফেসবুক গ্রুপে অাপলোড করা হয়, সেজন্য শিক্ষার্থীদের বাধ্য হয়েই অন্য একটি ডাটা প্যাক ক্রয় করতে হয়।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী জানায়, বিজ্ঞপ্তি দেয়ার প্রথম দিনই তিনি সফলভাবে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করেছিলেন। কিন্তু নিয়মানুসারে কনফার্মেশন এসএমএস না আসায় তিনি রিচার্জ করতে পারছিলেন না। যেখানে বলা হয়েছিলো সাথে সাথেই এসএমএস আসবে সেখানে এক দিন দুই দিন তিন পর ও এসএমএস আসেনি। অতঃপর প্রায় সাত দিন পর তার ফোনে এসএমএস আসে। কিন্তু রবির এই সেবার প্রতি একপ্রকার মনক্ষুন্ন হয়েই তিনি আর প্যাকেজটি কিনতে আগ্রহ প্রকাশ করেননি বলে জানান তিনি। তিনি আরো বলেন শুধুমাত্র বিডিরেন জুম এপসের জন্য এই ডাটা প্যাকটি কিনে শিক্ষার্থীদের কোনো লাভ হবে না। কেননা ক্লাসের জুম লিংক তারা গুগল ক্লাসরুম এপসের মাধ্যমে অথবা কেউ কেউ ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমেও পেয়ে থাকেন। সেক্ষেত্রে তাদের অন্য একটি ডাটা প্যাক কিনতে হচ্ছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী নাফিজ আলম চয়ন জানান, তিনিও বিজ্ঞপ্তি দেয়ার প্রথম দিনই সফলভাবে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করেছিলেন। কিন্ত এসএমএস না আসার ভোগান্তিতে ডাটা প্যাকটি ক্রয় করতে আগ্রহ প্রকাশ করেননি। তিনি আরো জানান, রেজিস্ট্রেশন ছাড়াও অন্য যেকোনো রবি/এয়ারটেল নাম্বারেও (*১২৩*৭৭৩৩#) ইউএসএসডি কোডটি ডায়েল করলেও এই অফারটি দেখাচ্ছে এবং তিনি তার মায়ের নাম্বারেও চেক করে অফারটি দেখতে পেয়েছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মাহফুজ ও সেই এসএমএসের সমস্যার কথাই জানান। রবি সিম ব্যতীত তার অন্য কোনো সিম না থাকায় এসএমএসের জন্য অপেক্ষা করে সে দুইদিনের ক্লাস মিস করেছেন। এসএমএস পাওয়ার পর ডাটা প্যাক ক্রয় করতে পারলেও সে ডাটা প্যাক দিয়ে প্রায় ৩০ মিনিট চেষ্টা করেও ক্লাসে কানেক্টেড হতে পারেনি তিনি। বাধ্য হয়েই তাকে অন্য ডাটা প্যাক ক্রয় করতে হয়েছে।

রবির কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করে জানতে পারা যায় নির্দিষ্ট গ্রাহক ব্যতীত অন্য কোনো গ্রাহক এই ডাটা প্যাকটি ব্যবহার করতে পারবেন না। অসুবিধাগুলোর জন্য দুঃখ প্রকাশ করে দ্রুতই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে জানানো হয়। অন্যদিকে ক্যাম্পাসে রবির সিম সরবারাহকারীরা জানান, রবি/এয়ারটেলের নতুন সিম ব্যতীত এই সুবিধা পাবে না। তারা এসব বলে ক্যাম্পাসে সিম বিক্রি করছেন বলে জানা যায়। নতুন সিম ক্রয়ের জন্য নির্দেশাবলি বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ থাকলেও পুরনো সিমে এ সুবিধা ব্যবহার করা যাবে না এমন কোনো কিছু বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ নেই। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এসব বলে সিম বিক্রির ব্যবসা শুরু করেছেন বলে অভিযোগ করছেন শিক্ষার্থীরা।

সমস্যা গুলোর ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের নেটওয়ার্ক ও আইটি দপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক ড. উজ্জ্বল কুমার আচার্য বলেন, রেজিষ্ট্রেশন সংক্রান্ত যেকোনো সমস্যা আইটি দপ্তর থেকে সমাধান করা সম্ভব। তবে রবির কোনো সমস্যার (সিম, নেটওয়ার্ক) সমাধান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে করা সম্ভব নয়। রেজিস্ট্রেশন শুরু হওয়ার পর প্রথম সাত দিনে ৩৩২ জন রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করেছেন বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য যে, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দও ১৯৯ টাকার বিনিময়ে রবির এই সুবিধা পাবেন। তবে তারা কোন ভতুর্কি সুবিধা পাবেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here